Saturday, November 17, 2018

বাংলালিংকে নতুন সিমে 42 টাকায় 3 জিবি অফারটি কি আছে?

প্রযোজ্য যারা বাংলালিংক নতুন সংযোগে চালু করে প্রথম ৪৮ টাকা রিচার্জ করেছে। সেই গ্রাহক মাত্র ৪২ টাকা রিচার্জ অথবা *১৩২*৯৪৩# ডায়াল করে উক্ত অফার পাবেন।
Share:

Monday, November 5, 2018

স্বাক্ষর করতে নামের সব

জি না, এর কোন বাধ্যবাধকতা নেই। তবে আপনাকে খুব খেয়াল রাখতে হবে প্রতিবার যেন একই রকম দেখতে হয় আপনার স্বাক্ষর।
Share:

আমার চোখ থেকে সবসময় পনি ঝরে কেন দয়া করে উওর টি দিন?

বেশীর ভাগ ক্ষেত্রে পানি পড়া বন্ধ হয়। কিছু কিছু ক্ষেত্রে প্রোবিং সার্জারীর মাধ্যমে এই সমস্যার সমাধান করতে হয়। তরুণ বয়সে নেত্রনালীর সমস্যার কারণে চোখ হতে পানি পড়লে নিয়মিত ডাক্তারের পরামর্শে এন্টিবায়োটিক ড্রপ, কোন কোন ক্ষেত্রে এন্টিবায়োটিক / স্টেরইড এর মিশ্রন ব্যবহার করলে এ সমস্যা অনেকাংশে লাঘব হয়। নেত্রনালী সমস্যা ব্যতিত অন্য কারণে পানি পড়লে সে কারণ চিহ্নিত করে ডাক্তারের পরামর্শে তার চিকিৎসা করাতে হবে। এবং চিকিৎসা আরম্ভ হলে কতটুক ক্ষতি হওয়ার আশংকা আছে ডাক্তারগণই আপনাকে জানাবে।
Share:

Tuesday, October 9, 2018

capitalism meaning in economics

What is 'Capitalism'


Capitalism is an economic system in which capital goods are owned by private individuals or businesses. The production of goods and services is based on supply and demand in the general market (), rather than through central planning (planned economy or command economy). The purest form of capitalism is free market or laissez-faire capitalism, in which private individuals are completely unrestrained in determining where to invest, what to produce or sell and at which prices to exchange goods and services, operating without checks or controls. Most modern countries practice a mixed capitalist system of some sort that includes government regulaion of business and industry.
Share:

The Four Types of Economies







The Four Types of Economies









1. Traditional Economic System













The traditional economic system is the most traditional and ancient types of economies in the world. Vast portions of the world still function under a traditional economic system. These areas tend to be rural, second- or third-world, and closely tied to the land, usually through farming. In general, in this type of economic system, a surplus would be rare. Each member of a traditional economy has a more specific and pronounced role, and these societies tend to be very close-knit and socially satisfied. However, they do lack access to technology and advanced medicine.



















2. Command Economic System













In a command economic system, a large part of the economic system is controlled by a centralized power. For example, in the USSR most decisions were made by the central government. This type of economy was the core of the communist philosophy.

Since the government is such a central feature of the economy, it is often involved in everything from planning to redistributing resources. A command economy is capable of creating a healthy supply of its resources, and it rewards its people with affordable prices. This capability also means that the government usually owns all the significant industries like utilities, aviation, and railroad.

railroad in a command economy

In a command economy, it is theoretically possible for the government to create enough jobs and provide goods and services at an affordable rate. However, in reality, most command economies tend to focus on the most valuable resources like oil.

China or D.P.R.K. (North Korea) are examples of command economies.

Advantages of Command Economic Systems



  • If executed correctly, the government can mobilize resources on a massive scale. This mobility can provide jobs for almost all of the citizens.

  • The government can focus on the good of the society rather an individual. This focus could lead to a more efficient use of resources.


Disadvantages of Command Economic Systems



  • It is hard for the central planners to provide for everyone’s needs. This forces the government to ration because it cannot calculate demand since it sets prices.

  • There is a lack of innovation since there is no need to take any risk. Workers are also forced to pursue jobs the government deems fit.




















3. Market Economic System













In a free market economy, firms and households act in self-interest to determine how resources get allocated, what goods get produced and who buys the goods. This is opposite to how a command economy works, where the central government gets to keep the profits.

There is no government intervention in a pure market economy (“laissez-faire“). However, no truly free market economy exists in the world. For example, while America is a capitalist nation, our government still regulates (or attempts to control) fair trade, government programs, honest business, monopolies, etc.

In this type of economy, there is a separation of the government and the market. This separation prevents the government from becoming too powerful and keeps their interests aligned with that of the markets.

Hong Kong has been seen as an example of a free market society.

Advantages of a Free Market Economy



  • Consumers pay the highest price they want to, and businesses only produce profitable goods and services. There is a lot of incentive for entrepreneurship.

  • This leads to the most efficient use of the factors of production since businesses are very competitive.

  • Businesses invest heavily in research and development. There is an incentive for constant innovation as companies compete to provide better products for consumers.


free market research and development


Disadvantages of a Free Market Economy



  • Due to the fiercely competitive nature of a free market, businesses will not care for the disadvantaged like the elderly or disabled. This leads to higher income inequality.

  • Since the market is driven solely by self-interest, economic needs have a priority over social and human needs like providing healthcare for the poor. Consumers can also be exploited by monopolies.




















4. Mixed Economic System













A mixed economy is a combination of different types of economic systems. This economic system is a cross between a market economy and command economy. In the most common types of mixed economies, the market is more or less free of government ownership except for a few key areas like transportation or sensitive industries like defense and railroad.

However, the government is also usually involved in the regulation of private businesses. The idea behind a mixed economy was to use the best of both worlds – incorporate policies that are socialist and capitalist.

To a certain extent, most countries are mixed economic system. For example, India and France are mixed economies.

Advantages of Mixed Economies



  • There is less government intervention than a command economy. This means that private businesses can run more efficiently and cut costs down than a government entity might.

  • The government can intervene to correct market failures. For example, most governments will come in and break up large companies if they abuse monopoly power. Another example could be the taxation of harmful products like cigarettes to reduce a negative externality of consumption.

  • Governments can create safety net programs like healthcare or social security.

  • In a mixed economy, governments can use taxation policies to redistribute income and reduce inequality.


Disadvantages of Mixed Economies



  • There are criticisms from both sides arguing that sometimes there is too much government intervention and sometimes there isn’t enough.











Share:

Specialization and Exchange


Specialization and Exchange





  • An economy is an area in which people produce goods and services

  • The private sector in an economy is made up of all the organizations and firms owned by members of the general public. It also consists of private individuals and voluntary organizations

  • The public sector in an economy is owned and controlled by a government. It consists of government organizations and the goods and services provided by the government

  • Production is any activity designed to satisfy people’s wants

  • The using up of goods and services to satisfy our wants is known as consumption


Factors of Production

  • The scarce resources available for use in the production of goods and services to satisfy our wants are called factors of production

  • These are the inputs into a production process from which an output of goods and services emerges

  • Land: natural resources

  • Labor: human resources (mental & physical efforts)

  • Enterprise: the business know-how and ability to run a production process; they employ and organize the resources in a firm and take risks

  • Capital: man-made resources

  • Factors of production can be used far more productively and produce far more services to satisfy wants if they specialize in the production of one or only a small number of tasks


Types of Goods

  • Consumer goods are any goods a consumer wants

  • Capital goods are resources which help produce other goods and services

  • Public goods are goods and services produce by the government

  • Merit goods are the goods that the governments produce for the benefit of the people


Specialization

  • Specialization: a social phenomenon of human organizations each concentrating their efforts on a limited range of tasks to increase efficiency and productivity

  • The increased production achieved by specialization is the result of the division of labor where each worker specializes in doing a particular task rather than being a jack of all trades

  • Types of specialization:
    By industry: e.g. cotton industry
    By firms: e.g. spinning
    By workers: termed as division of labor e.g. head of production
    By region: e.g. sports goods in Sialkot
    By international: e.g. oil in Middle East

  • Limitations to the division of labor:
    Size of market: if the demand is low, the excess supply will just be a cost for the company
    Transport cost: good transportation is always beneficial for a firm
    Nature of product: some goods and services cannot be broken down into smaller tasks

  • Advantages of division of labor:
    More goods and services can be produced because of the speed and skill
    Full use of everyone’s capabilities
    Time is saved
    Allows machinery to be used
    More wealth is created therefore improving the people’s standard of living

  • Disadvantages of division of labor:
    Work may become boring
    Alienation because not everyone sees the end product
    Dependency increases
    All products become standardized and cannot please everyone

  • Diversification is the process of entering new business markets with new products and expanding your production

  • A firm must have diversification to avoid loss of production due to any reason


Money and Exchange

  • Money is a mode of exchange

  • Problems associated with barter:
    Rates of exchange undefined
    Double coincidence of wants needed
    Lack of space & durability issue
    Cannot save



  • Functions of money:
    Medium of exchange: generally acceptable everywhere
    Measure of value: price of goods can be fixed according to a single commodity
    Store of value: tends to hold its value overtime
    Deferred method of payment: ability to buy goods on credit



  • Characteristics of good money:
    Acceptable
    Durable
    Portable
    Divisible
    Valuable (store of value)
    Scarce



  • Why is money important?
    Hard to trade in barter
    Encourages specialization
    Raises national income
    Higher standard of living



  • Near money are the assets that can quickly be converted into cash

  • The number of times notes and coins are circulated in the economy within a year is called the velocity of circulation


Share:

What is an economic choice?

Economic choices are decisions which are made by firms, individuals, and or governments regarding which needs and wants to satisfy, and what types of products and services should be produced and bought. Choices arise as a result of economic problem of scarcity.
Share:

economics scope and basic theme



What is Economies of Scope?


Economies of scope is an economic concept that the unit cost to produce a product will decline as the variety of products increases. That is, the more different-but-similar goods you produce, the lower the total cost to produce each one.

For example, let’s say that you’re a shoe manufacturer. You produce men’s and women’s sneakers. Adding a children’s line of sneakers would increase economies of scope because you can use the same production equipment, supplies, storage, and distribution channels to make a new line of products. That will further reduce the cost of production on all your shoes.

The cost to produce all three of your different lines is lower than if three different companies each produced a line of men’s shoes, a line of women’s shoes, and a children’s line. Because you can extend the use of your resources to make more products to be sold to your same target market, you can continue to drive costs down.

Economies of Scale


You’ve probably heard of economies of scale, which is a similar economic concept – but not exactly. Economies of scale are gained simply by producing more products – through more volume. So if you were a necklace manufacturer, you could reduce the cost per piece by producing more necklaces. As production increases, the average cost per unit declines.

n contrast, with economies of scope, you need to produce more different types of products using the same resources. So instead of producing more necklaces, you would also produce bracelets and rings and earrings and charms, for example. You would add new types of products that could be produced with the same equipment and materials in order to reduce your average costs.

Generalist or Specialist


The challenge in pursuing economies of scope is the possibility of diluting what your business was originally known for. So, let’s say you built a business based on trendy dog clothes. You supplied handmade dog sweaters that were long-lasting and warm and clever. It’s what you were known for.

To continue to build your business, you could focus on selling more of what you already sell. That’s economies of scale. It also preserves your brand identity as a dog fashion guru.

However, another strategy is to grow your business by expanding the markets you serve, by adding products for animals other than dogs, like cats, and pigs, and goats. You can still sell pet sweaters, just to a broader audience. You’d no longer be a dog fashion guru, but rather a pet sweater guru.

There’s no right or wrong answer here, it’s just a matter of determining what makes the most sense for your business. Do you go deep or do you go broad product-wise in order to grow?


Share:

What is Economies of Scope?



What is Economies of Scope?


Economies of scope is an economic concept that the unit cost to produce a product will decline as the variety of products increases. That is, the more different-but-similar goods you produce, the lower the total cost to produce each one.

For example, let’s say that you’re a shoe manufacturer. You produce men’s and women’s sneakers. Adding a children’s line of sneakers would increase economies of scope because you can use the same production equipment, supplies, storage, and distribution channels to make a new line of products. That will further reduce the cost of production on all your shoes.

The cost to produce all three of your different lines is lower than if three different companies each produced a line of men’s shoes, a line of women’s shoes, and a children’s line. Because you can extend the use of your resources to make more products to be sold to your same target market, you can continue to drive costs down.

Economies of Scale


You’ve probably heard of economies of scale, which is a similar economic concept – but not exactly. Economies of scale are gained simply by producing more products – through more volume. So if you were a necklace manufacturer, you could reduce the cost per piece by producing more necklaces. As production increases, the average cost per unit declines.

n contrast, with economies of scope, you need to produce more different types of products using the same resources. So instead of producing more necklaces, you would also produce bracelets and rings and earrings and charms, for example. You would add new types of products that could be produced with the same equipment and materials in order to reduce your average costs.

Generalist or Specialist


The challenge in pursuing economies of scope is the possibility of diluting what your business was originally known for. So, let’s say you built a business based on trendy dog clothes. You supplied handmade dog sweaters that were long-lasting and warm and clever. It’s what you were known for.

To continue to build your business, you could focus on selling more of what you already sell. That’s economies of scale. It also preserves your brand identity as a dog fashion guru.

However, another strategy is to grow your business by expanding the markets you serve, by adding products for animals other than dogs, like cats, and pigs, and goats. You can still sell pet sweaters, just to a broader audience. You’d no longer be a dog fashion guru, but rather a pet sweater guru.

There’s no right or wrong answer here, it’s just a matter of determining what makes the most sense for your business. Do you go deep or do you go broad product-wise in order to grow?


Share:

Top 4 Definitions of Economics (With Conclusion)

The following points highlight the top four definitions of Economics. The definitions are: 1. General Definition of Economics 2. Adam Smith’s Wealth Definition 3. Marshall’s Welfare Definition 4. Robbins’ Scarcity Definition.

1. General Definition of Economics:


The English word economics is derived from the ancient Greek word oikonomia—meaning the management of a family or a household.

It is thus clear that the subject economics was first studied in ancient Greece.


 


What was the study of household management to Greek philosophers like Aristotle (384-322 BC) was the “study of wealth” to the mercantilists in Europe between the sixteenth and eighteenth centuries.

Economics, as a study of wealth, received great support from the Father of economics, Adam Smith, in the late eighteenth century.

Since then, the subject has travelled a long and this Greek or Smithian definition serves our purpose no longer. Over the passage of time, the focus of attention has been changed. As a result, different definitions have evolved.

These definitions can conveniently be grouped into three:

(i) Smith’s Wealth definition;

(ii) Marshall’s Welfare definition; and

(iii) Robbins’ Scarcity definition.

2. Adam Smith’s Wealth Definition:


The formal definition of economics can be traced back to the days of Adam Smith (1723-90) — the great Scottish economist. Following the mercantilist tradition, Adam Smith and his followers regarded economics as a science of wealth which studies the process of production, consumption and accumulation of wealth.

His emphasis on wealth as a subject-matter of economics is implicit in his great book— ‘An Inquiry into the Nature and Causes of the Wealth of Nations or, more popularly known as ‘Wealth of Nations’—published in 1776.

According to Smith:

“The great object of the Political Economy of every country is to increase the riches and power of that country.” Like the mercantilists, he did not believe that the wealth of a nation lies in the accumulation of precious metals like gold and silver.

To him, wealth may be defined as those goods and services which command value-in- exchange. Economics is concerned with the generation of the wealth of nations. Economics is not to be concerned only with the production of wealth but also the distribution of wealth. The manner in which production and distribution of wealth will take place in a market economy is the Smithian ‘invisible hand’ mechanism or the ‘price system’. Anyway, economics is regarded by Smith as the ‘science of wealth.’

Other contemporary writers also define economics as that part of knowledge which relates to wealth. John Stuart Mill (1806-73) argued that economics is a science of production and distribution of wealth. Another classical economist Nassau William Senior (1790-1864) argued “The subject-matter of the Political Economics is not Happiness but Wealth.” Thus, economics is the science of wealth. However, the last decade of the nineteenth century saw a scathing attack on the Smithian definition and in its place another school of thought emerged under the leadership of an English economist, Alfred Marshall (1842-1924).


Criticisms:

Following are the main criticisms of the classical definition:

i. This definition is too narrow as it does not consider the major problems faced by a society or an individual. Smith’s definition is based primarily on the assumption of an ‘economic man’ who is concerned with wealth-hunting. That is why critics condemned economics as ‘the bread-and-butter science’.

ii. Literary figures and social reformers branded economics as a ‘dismal science’, ‘the Gospel of Mammon’ since Smithian definition led us to emphasise on the material aspect of human life, i.e., generation of wealth. On the other hand, it ignored the non-material aspect of human life. Above all, as a science of wealth, it taught selfishness and love for money. John Ruskin (1819-1900) called economics a ‘bastard science.’ Smithian definition is bereft of changing reality.

iii. The central focus of economics should be on scarcity and choice. Since scarcity is the fundamental economic problem of any society, choice is unavoidable. Adam Smith ignored this simple but essential aspect of any economic system.

3. Marshall’s Welfare Definition:


Alfred Marshall in his book ‘Principles of Economics published in 1890 placed emphasis on human activities or human welfare rather than on wealth. Marshall defines economics as “a study of men as they live and move and think in the ordinary business of life.” He argued that economics, on one side, is a study of wealth and, on the other, is a study of man.

Emphasis on human welfare is evident in Marshall’s own words: “Political Economy or Economics is a study of mankind in the ordinary business of life; it examines that part of individual and social action which is most closely connected with the attainment and with the use of the material requisites of well-being.”

Thus, “Economics is on the one side a study of wealth; and on the other and more important side, a part of the study of man.” According to Marshall, wealth is not an end in itself as was thought by classical authors; it is a means to an end—the end of human welfare.

This Marshallian definition has the following important features:

i. Economics is a social science since it studies the actions of human beings.

ii. Economics studies the ‘ordinary business of life’ since it takes into account the money-earning and money-spending activities of man.

iii. Economics studies only the ‘material’ part of human welfare which is measurable in terms of the measuring rod of money. It neglects other activities of human welfare not quantifiable in terms of money. In this connection A. C. Pigou’s (1877- 1959)—another great neo-classical economist—definition is worth remem­bering. Economics is “that part of social welfare that can be brought directly or indirectly into relation with the measuring rod of money.”

iv. Economics is not concerned with “the nature and causes of the Wealth of Nations.” Welfare of mankind, rather than the acquisition of wealth, is the object of primary importance.

Criticisms:

Though Marshall’s definition of economics was hailed as a revolutionary one, it was criticised on several grounds.

They are:

i. Marshall’s notion of ‘material welfare’ came in for sharp criticism at the hands of Lionel Robbins (later Lord) (1898- 1984) in 1932. Robbins argued that economics should encompass ‘non- material welfare’ also. In Teal life, it is difficult to segregate material welfare from non-material welfare. If only the ‘materialist’ definition is accepted, the scope and subject-matter of economics would be narrower, or a great part of economic life of man would remain outside the domain of economics.

ii. Robbins argued that Marshall could not establish a link between economic activities of human beings and human welfare. There are various economic activities that are detrimental to human welfare. The production of war materials, wine, etc., are economic activities but do not promote welfare of any society. These economic activities are included in the subject-matter of economics.

iii. Marshall’s definition aimed at measuring human welfare in terms of money. But ‘welfare’ is not amenable to measure­ment, since ‘welfare’ is an abstract, subjective concept. Truly speaking, money can never be a measure of welfare.

iv. Marshall’s ‘welfare definition’ gives economics a normative character. A normative science must pass on value judgments. It must pronounce whether a particular economic activity is good or bad. But economics, according to Robbins, must be free from making value judgment. Ethics should make value judgments. Economics is a positive science and not a normative science.

v. Finally, Marshall’s definition ignores the fundamental problem of scarcity of any economy. It was Robbins who gave a scarcity definition of economics. Robbins defined economics in terms of allocation of scarce resources to satisfy unlimited human wants.

4. Robbins’ Scarcity Definition:


The most accepted definition of economics was given by Lord Robbins in 1932 in his book ‘An Essay on the Nature and Significance of Economic Science. According to Robbins, neither wealth nor human welfare should be considered as the subject-matter of economics. His definition runs in terms of scarcity: “Economics is the science which studies human behaviour as a relationship between ends and scarce means which have alternative uses.”

From this definition, one can build up the following propositions:

(i) Human wants are unlimited; wants multiply—luxuries become necessities. There is no end of wants. If food were plentiful, if there were enough capital in business, if there were abundant money and time—there would not have been any scope for studying economics. Had there been no wants there would not have been any human activity. Prehistoric people had wants. Modern people also have wants. Only wants change—and they are limitless.

(ii) The means or the resources to satisfy wants are scarce in relation to their demands. Had resources been plentiful, there would not have been any economic problems. Thus, scarcity of resources is the fundamental economic problem to any society. Even an affluent society experiences resource scarcity. Scarcity of resources gives rise to many ‘choice’ problems.

(iii) Since the prehistoric days one notices constant effort of satisfying human wants through the scarcest resources which have alternative uses. Land is scarce in relation to demand. However, this land may be put to different alternative uses.

A particular plot of land can be either used for jute cultivation or steel production. If it is used for steel production, the country will have to sacrifice the production of jute. So, resources are to be allocated in such a manner that the immediate wants are fulfilled. Thus, the problem of scarcity of resources gives rise to the problem of choice.

Society will have to decide which wants are to be satisfied immediately and which wants are to be postponed for the time being. This is the choice problem of an economy. Scarcity and choice go hand in hand in each and every economy: “It exists in one-man community of Robinson Crusoe, in the patriarchal tribe of Central Africa, in medieval and feudalist Europe, in modern capitalist America and in Communist Russia.”

In view of this, it is said that economics is fundamentally a study of scarcity and of the problems to which scarcity gives rise. Thus, the central focus of economics is on opportunity cost and optimisation. This scarcity definition of economics has widened the scope of the subject. Putting aside the question of value judgement, Robbins made economics a positive science. By locating the basic problems of economics — the problems of scarcity and choice — Robbins brought economics nearer to science. No wonder, this definition has attracted a large number of people into Robbins’ camp.

The American Nobel Prize winner in Economics in 1970, Paul Samuelson, observes: “Economics is the study of how men and society choose, with or without the use of money, to employ scarce productive resources which could have alternative uses, to produce various commodities over time, and distribute them for consumption, now and in the near future, among various people and groups in society.”

Criticisms:

This does not mean that Robbins’ scarcity definition is fault free.

His definition may be criticised on the following grounds:

i. In his bid to raise economics to the status of a positive science, Robbins deliberately downplayed the importance of economics as a social science. Being a social science, economics must study social relations. His definition places too much emphasis on ‘individual’ choice. Scarcity problem, in the ultimate analysis, is the social problem—rather an individual problem. Social problems give rise to social choice. Robbins could not explain social problems as well as social choice.

ii. According to Robbins, the root of all economic problems is the scarcity of resources, without having any human touch. Setting aside the question of human welfare, Robbins committed a grave error.

iii. Robbins made economics neutral between ends. But economists cannot remain neutral between ends. They must prescribe policies and make value judgments as to what is good for the society and what is bad. So, economics should pronounce both positive and normative statements.

iv. Economics, at the hands of Robbins, turned to be a mere price theory or microeconomic theory. But other important aspects of economics like national income and employment, banking system, taxation system, etc., had been ignored by Robbins.

Conclusion:


The science of political economy is growing and its area can never be rigid. In other words, the definition must not be inflexible. Because of modern research, many new areas of economics are being explored.

That is why the controversy relating to the definition of economics remains and will remain so in the future. It is very difficult to spell out a logically concise definition. In this connection, Mrs. Barbara Wotton’s remarks may be noted – ‘Whenever there are six economists, there are seven opinions!’

Despite these, Cairncross’ definition of economics may serve our purpose:

“Economics is a social science studying how people attempt to accommodate scarcity to their wants and how these attempts interact through exchange.” By linking ‘exchange’ with ‘scarcity’, Prof. A. C. Cairncross has added another cap to economics.

However, this definition does not claim any originality since scarcity—the root of all economic problems—had been dealt with elegantly by Robbins.

That is why, Robbinsian definition is more popular:

Economics is the science of making choices. Modern economics is a science of rational choice or decision-making under conditions of scarcity.
Share:

What is meant by the term 'scarcity' in economics?



Scarcity refers to the limited availability of a commodity, which may be in demand in the market.


The concept of scarcity was first given by Lionel Robbins. This explains an individual’s capacity to buy all or some of the commodities as per the available resources with that individual.


Robbins is famous for his definition of economics: "Economics is the science which studies human behaviour as a relationship between ends and scarce means which have alternative uses."


Scarcity is the fundamental economic problem of having seemingly unlimited human wants in a world of limited resources. It states that society has insufficient productive resources to fulfill all human wants and needs.




Share:

Scarcity in economics

Scarcity is one of the fundamental issues in economics. The issue of scarcity means we have to decide how and what to produce from limited resources. It means there is a constant opportunity cost involved in making economic decisions.

Economics solves the problem of scarcity by placing a higher price on scarce goods. The high price discourages demand and encourages firms to develop alternatives.

How does economics solve the problem of scarcity?


If we take a good like oil. The reserves of oil are limited; there is a scarcity of the raw material. As we use up oil reserves, the supply of oil will start to fall.

Diagram of fall in supply of oil


fall-supply-oil-price

If there is a scarcity of a good the supply will be falling, and this causes the price to rise. In a free market, this rising price acts as a signal and therefore demand for the good falls (movement along demand curve). Also, the higher price of the good provides incentives for firms to:

  • Look for alternative sources of the good e.g. new supplies of oil from Antarctic

  • Look for alternatives e.g. solar panel cars.

  • If we were unable to find alternatives to oil, then we would have to respond by using less transport. People would cut back on transatlantic flights and make fewer trips.


Demand over time

higher-price-oil-elasticity-time-lag

In the short-term, demand is price inelastic. People with petrol cars, need to keep buying petrol. However, over time, people may buy electric cars or bicycles, therefore, the demand for petrol falls. Demand is more price elastic over time.

Therefore, in a free market, there are incentives for the market mechanisms to deal with the issue of scarcity.

Scarcity and potential market failure


However, there is a potential for market failure. For example, firms may not think about the future until it is too late. Therefore, when the good becomes scarce, there might not be any practical alternative that has been developed.

Another problem with the free market is that since goods are rationed by price, there may be a danger that some people cannot afford to buy certain goods; they have limited income. Therefore, economics is also concerned with the redistribution of income to help everyone be able to afford necessities.

Another potential market failure is a scarcity of environmental resources. Decisions we take in this present generation may affect the future availability of resources for future generations. For example, production of CO2 emissions lead to global warming, rising sea levels, and therefore, future generations will face less available land and a shortage of drinking water.

The problem is that the free market is not factoring in this impact on future resource availability. Production of CO2 has negative externalities, which worsen future scarcity.

Tragedy of the commons


The tragedy of the commons occurs when there is over-grazing of a particular land/field. It can occur in areas such as deep-sea fishing which cause loss of fish stocks. Again the free-market may fail to adequately deal with this scarce resource.

Further reading on Tragedy of the Commons

Quotas and scarcity

One solution to dealing with scarcity is to implement quotas on how much people can buy. An example of this is the rationing system that occurred in the Second World War. Because there was a scarcity of food, the government had strict limits on how much people could get. This was to ensure that even people with low incomes had access to food – a basic necessity.

A problem of quotas is that it can lead to a black market; for some goods, people are willing to pay high amounts to get extra food. Therefore, it can be difficult to police a rationing system. But, it was a necessary policy for the second world war.
Share:

Wednesday, August 29, 2018

প্রাইমারি শিক্ষক নিয়োগ পরীক্ষার 200টি প্রশ্ন-উত্তরের ফাইনাল সাজেশন্স-২০১৮

রাইমারি শিক্ষক নিয়োগ পরীক্ষার 200টি প্রশ্ন-উত্তরের ফাইনাল সাজেশন্স-২০১৮

✿➢১) সামরিক শাসন জারি করা হয় – ১৯৫৮ সালের ৭ অক্টোবর
✿➢২) আইয়ুব খান ক্ষমতা দখল করেন – ১৯৫৮ সালের ২৭ অক্টোবর
✿➢৩) মৌলিক গণতন্ত্র চালু করেন – আইয়ুব খান
✿➢৪) আইয়ুব বিরোধী আন্দোলন শুরু হয় – ১৯৬১ সালে
✿➢৫) ছাত্র সমাজ ১৫ দফা কর্মসূচি ঘোষণা করে – ১৯৬২ সালে
✿➢৬) ভারত পাকিস্তান যুদ্ধ হয় – ১৯৬৫ সালের ৬ সেপ্টেম্বর
✿➢৭) ভারত পাকিস্তান যুদ্ধ চলে – ১৭ দিন
✿➢৮) বাঙ্গালি জাতির মুক্তির সনদ – ৬ দফা দাবি
✿➢৯) ৬ দফা দাবি উথাপন করেন – বঙ্গবন্ধু শেখ মুজিবুর রহমান
✿➢১০) ৬ দফা দাবি উথাপন করা হয় – ১৯৬৬ সালের ৫-৬ ফেব্রুয়ারি
✿➢১১) আগরতলা ষড়যন্ত্র মামলার আসামি ছিল – ৩৫ জন
✿➢১২) আগরতলা ষড়যন্ত্র মামলার প্রধান আসামি করা হয় – বঙ্গবন্ধু শেখ মুজিবুর রহমানকে
✿➢১৩) আগরতলা ষড়যন্ত্র মামলার শুনানি হয় – ১৯৬৮ সালের ১৯ জুন
✿➢১৪) ঊনসত্তরের গণ অব্যুথান হয় – ১৯৬৯ সালে
✿➢১৫) গণ অভ্যুথানে শহীদ হন – আসাদ, ড. শামসুজ্জোহা
✿➢১৬) আগরতাল ষড়যন্ত্র মামলা থেকে শেখ মুজিবুর রহমানকে মুক্তি দেয়া হয় – ১৯৬৯ সালের ২২ ফেব্রুয়ারি
✿➢১৭) শেখ মুজিবুর রহমানকে ” বঙ্গবন্ধু ” উপাধি দেয়া হয় – ১৯৬৯ সালের ২৩ ফেব্রুয়ারি
✿➢১৮) আইয়ুব খান পদত্যাগ করেন – ১৯৬৯ সালের ২৫ মার্চ
✿➢১৯) কেন্দ্রীয় আইন পরিষদের নির্বাচন অনুষ্ঠিত হয় – ১৯৭০ সালের ৭ ডিসেম্বর
✿➢২০) নির্বাচনে মোট ভোটার ছিল – ৫ কোটি ৬৪ লাখ
✿➢২১) কেন্দ্রীয় আইন পরিষদের নির্বাচনে আওয়ামী লীগ আসন লাভ করে – ১৬৭ টি ( ১৬৯ এর ধ্যে)
✿➢২২) প্রাদেশিক পরিষদের নির্বাচন অনুষ্ঠিত হয় – ১৯৭০ সালের ১৭ ডিসেম্বর
✿➢২৩) প্রাদেশিক পরিষদ নির্বাচনে আ.লীগ আসন পায় – ২৮৮ টি ( ৩০০ এর মধ্যে)
✿➢২৪) পাকিস্তান জাতীয় পরিষদের অধিবেশন স্থগিত করেন – আগা খান
✿➢২৫) অধিবেশন স্থগিত করা হয় – ১৯৭১ সালের ১ মার্চ
✿➢২৬) অসহযোগ আন্দোলনের ডাক দেন – বঙ্গবন্ধু শেখ মুজিবুর রহমান
✿➢২৭) অসহযোগ আন্দোলনের ডাক দেয়া হয় – ১৯৭১ সালের ২ মার্চ
✿➢২৮) বঙ্গবন্ধুর ৭ মার্চের ভাষণের সময় পূর্ব পাকিস্তানে চলছিল – অসহযোগ আন্দোলন
✿➢২৯) জাতীয় পরিষদের অধিবেশন আহবান করা হয় – ১৯৭১ সালের ৩ মার্চ
✿➢৩০) পূর্ববাংলার স্বাধীনতার ঘোষণা দেয়া হয় – ১৯৭১ সালের ৭ মার্চের ঐতিহাসিক ভাষণে
✿➢৩১) অপারেশন সার্চ লাইট চালানোর নীলনক্সা করা হয় – ১৯৭১ সালের ১৭ মার্চ
✿➢৩২) নীলনক্সা করেন – টিক্কা খান, রাও ফরমান আলী
✿➢৩৩) অপারেশন সার্চ লাইট হলো – ১৯৭১ সালের ২৫ মার্চের বর্বরহত্যাকান্ড
✿➢৩৪) বঙ্গবন্ধু স্বাধীনতার ঘোষণা দেন – ২৬ মার্চ প্রথম প্রহরে ওয়্যারলেসযোগে
✿➢৩৫) বঙ্গবন্ধুকে শেখ মুজিবুর রহমানকে গ্রেফতার করা হয় – ২৬ মার্চ প্রথম প্রহরে আনুমানিক রাত ১.৩০ মিনিটে
✿➢৩৬) শেখ মুজিবুর রহমান স্বাধীনতার ঘোষণা দেন- ২৬ মার্চ প্রথম প্রহরে ২৫ মার্চ রাত ১২ টার পর
✿➢৩৭) বঙ্গবন্ধুর স্বাধীনতার ঘোষণাটি ছিল – ইংরেজিতে।
✿➢৩৮) বাংলাদেশের অধিকাংশ নদীর উৎপত্তিস্থল – ভারতে
✿➢৩৯) বাংলাদেশে নদী পথের দৈর্ঘ্য – ৯৮৩৩ কিমি
✿➢৪০) সারাবছর নৌ চলাচলের উপযোগী নৌপথ – ৩,৮৬৫ কি.মি
✿➢৪১) অভ্যন্তরীন নৌ পরিবহন কর্তৃপক্ষ তৈরি হয়েছে – ১৯৫৮ সালে
✿➢৪২) কাপ্তাই জলবিদ্যুৎ কেন্দ্র থেকর প্রথম বিদ্যুৎ উৎপাদন করা হয় – পাকিস্তান আমলে
✿➢৪৩) অভ্যন্তরীন নৌ পথে দেশের মোট বাণিজ্যিক মালামালের – ৭৫% আনা নেয়া হয়
✿➢৪৪) বাংলাদেশ শিপিং কর্পোরেশন প্রতিষ্ঠিত হয় – ১৯৭২ সালে
✿➢৪৫) বাংলাদেশে চা চাষ হচ্ছে – উওর ও পূর্বাঞ্চলের পাহাড়ে
✿➢৪৬) সারা বছর বৃষ্টিপাত হয় – উষ্ণ ও আদ্র জরবায়ু অঞ্চলে
✿➢৪৭) বাংলাদেশে চির হরিৎ বনাঞ্চল – পার্বত্য চট্টগ্রামের বনাঞ্চল
✿➢৪৮) বাংলাদেশে খনিজ সম্পদ সমৃদ্ধ জেলা সমূহ – পূবাঞ্চলীয় পাহাড়ি জেলা সমূহ
✿➢৪৯) বাংলাদেশের লবণাক্তের পরিমাণ বেশি – দক্ষিণাঞ্চলের বেশ কিছু এলাকা
✿➢৫০) বাংলাদেশের ক্রান্তীয় চিরহরিৎ ও পত্রপতনশীল বনভূমি- দক্ষিণ পূর্ব ও উত্তর পুর্ব অংশের পাহাড়ী অঞ্চল
✿➢৫১) চিরহরিৎ বনকে বলা হয় – চির সবুজ বন
✿➢৫২) চিরহরিৎ বনভূমির পরিমাণ – ১৪ হাজার বর্গ কি.মি
✿➢৫৩) প্রচুচুর বাঁশ ও বেত জন্মে – সিলেটে
✿➢৫৪) রাবার চাষ হয় – পার্বত্য চট্টগ্রাম ও সিলেটে
✿➢৫৫) ক্রান্তীয় পাতাঝরা অরণ্য – ময়মনসিংহ, টাঙ্গাইল, গাজীপুর, দিনাজপুর ও রংপুর জেলায়
✿➢৫৬) শীতকালে গাছের পাতা সম্পূর্ণ ঝরে যায় – ক্রান্তীয় পাতাঝরা বনভূমির
✿➢৫৭) ক্রান্তীয় পাতাঝরা বনভূমির প্রধান বৃক্ষ – শাল
✿➢৫৮) মধুপুর ভাওয়াল বনভূমি – ময়মনসিংহ, টাঙ্গাইল ও গাজীপুরে
✿➢৫৯) দিনাজপুরে এটি – বরেন্দ্র নামে পরিচিত
✿➢৬০) স্রোতজ বনভূমি- দক্ষিণ পশ্চিমাংশের নোয়াখালী ও চট্টগ্রাম জেলার উপকূলীয় বন
✿➢৬১) স্রোতজ বনভূমি প্রধানত জন্মে – সুন্দরবনে
✿➢৬২) বাংলাদেশে স্রোতজ বা গরান বনভূমির পরিমাণ – ৪,১৯২ বর্গ কি.মি
✿➢৬৩) বাংলাদেশ সরকারে বিভাগ – ৩ টি
✿➢৬৪) আইনবিভাগের কাজ – আইন প্রনয়ন ও প্রচলিত আইনের সংশোধন
✿➢৬৫) আইন বিভাগের একটি অংশ – আইনসভা
✿➢৬৬) এপ্রিল মাসের গড় তাপমাত্রা – কক্সবাজার ২৭.৬৪ ডিগ্রী, নারায়ণগঞ্জে ২৮.৬৬ ডিগ্রী, রাজশাহীতে ৩০ ডিগ্রী
✿➢৬৭) গ্রীষ্মকালে বাংলাদেশের উপর দিয়ে বয়ে যায় – দক্ষিণ পশ্চিম মৌসুমী বায়ু
✿➢৬৮) কালবৈশাখী ঝড় আঘাত হানে – পশ্চিম ও উত্তর পশ্চিম দিক থেকে
✿➢৬৯) প্রলয়ংকারী ঘূর্ণিঝড় হয় – ১৯৯১ সালের ২৯ এপ্রিল
✿➢৭০) বাংলাদেশে বর্ষাকাল – জুন হতে অক্টোবর মাস
✿➢৭১) প্রচুর বৃষ্টিপাত হয় – জুন মাসের শেষ দিকে মৌসুমী বায়ুর প্রভাবে
✿➢৭২) বর্ষাকালে আবহাওয়া সর্বদা – উষ্ণ থাকে
✿➢৭৩) বর্ষাকালে গড় উষ্ণতা – ২৭ ডিগ্রী সে.
✿➢৭৪) বর্ষাকালে সবচেয়ে বেশি গরম পড়ে – জুন ও সেপ্টেম্বর মাসে
✿➢৭৫) বাংলাদেশের মোট বৃষ্টিপাতের – ৪/৫ ভাগ হয় হয় বর্ষাকালে
✿➢৭৬) বর্ষাকালে সর্বোচ্চ ও সর্বনিম্ন গড় বৃষ্টিপাত হয় – ৩৪০ ও ১১৯ সে.মি
✿➢৭৭) বর্ষাকালে ক্রমে বৃষ্টিপাত বেশি হয় – পশ্চিম হতে পূর্ব দিকে
✿➢৭৮) বর্ষাকালে বিভিন্ন জেলার বৃষ্টিপাতের পরিমান –পাবনায় প্রায় ১১৪, ঢাকায় ১২০, কুমিল্লায় ১৪০, শ্রীমঙ্গলে ১৮০ এবং রাঙ্গামাটিতে ১৯০ সে.মি
✿➢৭৯) বর্ষাকালে প্রচুর বৃষ্টিপাত হয় – মৌসুমী বায়ুর প্রভাবে
✿➢৮০) বর্ষাকালে পর্বতের পাদদেশে এবং উপকূলবর্তী অঞ্চলের কোথাও বৃষ্টিপাত – ২০০ সে.মি কম হয়
✿➢৮১) বর্ষাকালে বিভিন্ন অঞ্চলের বৃষ্টিপাত – সিলেটের পাহাড়ী অঞ্চলে ৩৪০ সেমি, পটুয়াখালীতে ২০০ সেমি, চটগ্রামে ২৫০ সেমি, রাঙ্গামাটিতে ২৮০ সেমি এবং কক্সবাজারে ৩২০ সেমি।
✿➢৮২) জলবায়ু পরিবর্তনের কারনে সমুদ্রপৃষ্টের উচ্চতা প্রতি বছর গড়ে বৃদ্ধি – ৪ মিমি থেকে ৬ মিমি ( হিরন পয়েন্ট, চর চংগা, কক্সবাজার)
✿➢৮৩) গত ৪ হাজার বছরে ভূমিকম্পে পৃথিবীতে মানুষ মারা যায় – প্রায় ১ কোটি ৫০ লাখ
✿➢৮৪) ভৌগোলিক ভাবে বাংলাদেশের অবস্থান – ইন্ডিয়ান ও ইউরোপিয়ান প্লেটের সীমানায়
✿➢৮৫) বাংলাদেশে ভূমিকম্পের মানবসৃষ্ট কারন – পাহাড় কাটা
✿➢৮৬) ভূমিকম্পের ফলে সমুদ্রের পানি উপকূলে উঠে – ১৫-২০ মিটার উঁচু হয়ে
✿➢৮৭) ভূমিকম্পের ফলে সৃষ্টি হয় – সুনামি
✿➢৮৮) ইন্দোনেশিয়ায় মারাত্নক সুনামি আঘাত হানে – ২০০৪ সালের ২৬ ডিসেম্বর
✿➢৮৯) বাংলাদেশে ভূমিকম্প হয়ে থাকে – টেকটনিক প্লেটের সংঘর্ষের কারনে
✿➢৯০) বাংলাদেশের ভূমিকম্প বলয় মানচিত্র তৈরি করেছিলেন – ফরাসি ইঞ্জিনিয়ার কনসোর্টিয়াম ১৯৮৯ সালে
✿➢৯১) তিনি বলয় দেখিয়েছেন – ৩ টি
✿➢৯২) বলয়গুলোকে ভাগ করেছেন – প্রলয়ংকারী, বিপজ্জনক, লঘু
✿➢৯৩) এই বলয় সমূহকে বলা হয় – সিসমিক রিস্ক জোন
✿➢৯৪) বরেন্দ্রভূমি – নওগাঁ, রাজশাহী, বগুড়া, জয়পুরহাট, রংপুর ও দিনাজপুরের অংশ বিশেষ নিয়ে গঠিত
✿➢৯৫) বরেন্দ্রভূমির আয়তন – ৯৩২০ বর্গ কি.মি
✿➢৯৬) প্লাবন সমভূমি থেকে এর উচ্চতা – ৬ থেকে ১২ মিটার
✿➢৯৭) বরেন্দ্র অঞ্চলের মাটি – ধূসর ও লাল বর্ণের
✿➢৯৮) মধুপুর ও ভাওয়ালের সোপানের আয়তন – ৪,১০৩ বর্গ কি.মি
✿➢৯৯) সমভূমি থেকে এর উচ্চতা – ৬থেকে ৩০ মিটার
✿➢১০০) মধুপুর ও ভাওয়ালের মাটি – লালচে ও ধূসর
১০১) লালমাই পাহাড় – কুমিল্লা শহর থেকে ৮ কি.মি পশ্চিমে
১০২) লালমাই পাহাড়ের আয়তন – ৩৪ বর্গ কি.মি
১০৩) এই পাহাড়ের উচ্চতা–২১ মিটার
১০৪) লালমাই পাহাড়ের মাটি- লালচে, এবং নুড়ি, বালি ও কংকর মিশ্রিত
১০৫) বাংলাদেশের নদী বিধৌত বিস্তীর্ণ সমভূমি – প্রায় ৮০%
১০৬) প্লাবন সমভূমির আয়তন – ১,২৪,২৬৬ বর্গ কি.মি
১০৭) প্লাবন সমভূমি – দেশের উত্তর পশ্চিমে অবস্থিত রংপুর ও দিনাজপুর জেলার অধিকাংশ
১০৮) উপকূলীয় সমভূমি – নোয়াখালী, ফেনীর নিম্নভাগ থেকে কক্সবাজার পর্যন্ত
১০৯) স্রোতজ সমভূমি – খুলনা পটুয়াখালী ও বরগুনা জেলার কিয়দংশ
১১০) জনসংখ্যায় বিশ্বে বাংলাদেশের অবস্থান – ৯ম
১১১) ২০০১ সালে জনসংখ্যা ছিল – ১২.৯৩ কোটি
(২০১৭সালে১৬৩,১৮৭,০০০ জন প্রায়)
১১২) জনসংখ্যা বৃদ্ধির হার ছিল – ১.৪৮%
১১৩) বর্তমানে জনসংখ্যা বৃদ্ধির হার – ১.৩৭ %
১১৪) আদমশুমারি ২০১১ অনুযায়ী জনসংখ্যা – ১৪.৯৭ কোটি (১৪,৯৭,৭২,৩,৬৪ জন)
১১৫) প্রতি বর্গকিলোমিটারে বাস করে – ১১০৬ জন
১১৬) জনসংখ্যার ঘনত্ব সবচেয়ে কম – পার্বত্য অঞ্চল ও সুন্দরবনে
১১৭) শীত গ্রীষ্মের তারতম্য বেশী – দেশের উত্তরাঞ্চলে
১১৮) বর্তমানে মাথাপিছু জমির পরিমান – ০.২৫ একর
১১৯) বাংলাদেশের জলবায়ু – ক্রান্তীয় মৌসুমী জলবায়ু
১২০) বাংলাদেশে শীতকাল- নভেম্বর থেকে ফেব্রুয়ারি
১২১) শীতকালে দেশের সর্বোচ্চ ও সর্বনিম্ন তাপমাত্রা – ২৯ ডিগ্রী ও ১১ ডিগ্রী সে.
১২২) বাংলাদেশের শীতলতম মাস- জানুয়ারি
১২৩) জানুয়ারি মাসের গড় তাপমাত্রা – ১৭.৭ ডিগ্রী সে.
১২৪) জানুয়ারি মাসে সবচেয়ে কম তাপমাত্রা – দিনাজপুরে ১৬.৬
১২৫) বাংলাদেশে গ্রীষ্মকাল – মার্চ থেকে মে মাস
১২৬) গ্রীষ্মকালে সর্বোচ্চ ও সর্বনিম্ন তাপমাত্রা – ৩৮ এবং ২১ ডিগ্রী সে.
১২৭) উষ্ণতম মাস – এপ্রিল মাস
১২৮) মোহাম্মদ আলী জিন্নাহ মুসলিম লীগের দাপ্তরিক ভাষা উর্দু করার প্রস্তাব দেন – ১৯৩৭ সালে
১২৯) ব্রিটিশ শাসনের অবসান হয় – ১৯৪৭ সালের ১৪ আগষ্ট
১৩০) মুসলিম লীগের দাপ্তরিক ভাষা উর্দু করার প্রস্তাবের বিরোধীতা করেন – শেরে বাংলা এ.কে. ফজলুল হক
১৩১) চৌধুরী খালেকুজ্জামান পাকিস্তানের রাষ্ট্র ভাষা উর্দু করার দাবি করেন – ১৯৪৭ সালের ১৭ মে
১৩২) চৌধুরী খালেকুজ্জামান এর প্রস্তাবের বিরোধীতা করেন – ড. মুহাম্মদ শহীদুল্লাহ এবং ড. এনামুল হক
১৩৩) ‘ গণ আজাদী লীগ’ গঠিত হয় – ১৯৪৭ সালে কারুদ্দিন আহমদের নেতৃত্বে
১৩৪) গণ আজাদী লীগের দাবি ছিল – মাতৃভাষায় শিক্ষা দান
১৩৫) তমদ্দুন মজলিশ গঠিত হয় – ১৯৪৭ সালের ২ সেপ্টেম্বর
১৩৬) তমদ্দুন মজলিশ গঠিত হয় – অধ্যাপক আবুল কাশেমের নেতৃত্বে
১৩৭) ভাষা সংগ্রাম পরিষদ গঠন করে – তমদ্দুন মজলিশ
১৩৮) উর্দুকে পাকিস্তানের রাষ্ট্র ভাষা করার সিদ্ধান্ত গৃহীত হয় – ১৯৪৭ সালের ডিসেম্বর মাসে
১৩৯) বাংলাকে উর্দু ও ইংরেজির পাশাপাশি পাকিস্তানের রাষ্ট্রভাষা করার দাবি জানান – ধীরেন্দ্রনাথ দত্ত ( ১৯৪৮ সালের ২৩ ফেব্রুয়ারি)
১৪০) সর্বদলীয় রাষ্ট্রভাষা সংগ্রাম পরিষদ গঠিত হয় – ১৯৪৮ সালের ২ মার্চ
১৪১) বাংলা ভাষা দাবি দিবস পালনের ঘোষণা দেয় যে তারিখকে – ১৯৪৮ সালে ১১ মার্চকে
১৪২) পূর্ব পাকিস্তান মুসলিম ছাত্র লীগ ( বর্তমান ছাত্র লীগ) গঠিত হয় – ১৯৪৮ সালের ৪ জানুয়ারি
১৪৩) ৮ দফা চুক্তি স্বাক্ষরিত হয় – ১৯৪৮ সালের ১৫ মার্চ
১৪৪) ৮ দফা চুক্তি স্বাক্ষরিত হয় – মুখ্য মন্ত্রী খাজা নাজিমুদ্দিন ও রাষ্ট্রভাষা সংগ্রাম পরিষদের মধ্যে
১৪৫) মোহাম্মদ আলী জিন্নাহ রেসকোর্স ময়দানে উর্দুকে রাষ্ট্রভাষার করার কথা ঘোষণা দেন – ১৯৪৮ সালের ২১ মার্চ
১৪৬) খাজা নাজিমুদ্দিন উর্দুকে রাষ্ট্রভাষা করার ঘোষণা দেন- ১৯৫২ সালের ২৬ জানুয়ারি পল্টন ময়দানে
১৪৭) রাষ্ট্রভাষা সংগ্রাম পরিষদ নতুন ভাবে গঠিত হয় – ১৯৫২ সালের ৩০ জানুয়ারি ( আবদুল মতিন আহবায়ক)
১৪৮) ১৯৫২ সালের ২১ ফেব্রুয়ারি কর্মসূচি পালনের পরামর্শ দেন – বঙ্গবন্ধু শেখ মুজিবুর রহমান
১৪৯) ১৯৫২ সালের ২১ ফেব্রুয়ারি – সকাল ১১ টায় সভা অনুষ্ঠিত হয়
১৫০) ২১ ফেব্রুয়ারির সভা অনুষ্ঠিত হয় – ঢাকা বিশ্ববিদ্যালয়ের আমতলায়
এরকম আরো গুরত্বপূর্ন সব পোস্ট সাথে সাথে পেতে আমাদের ফেসবুক পেইজে দিয়ে রাখুন।
১৫১) সভায় সিদ্ধান্ত হয় – ১০ জন করে মিছিল করবে
১৫২) শহীদ শফিউর মৃত্যুবরণ করেন – ১৯৫২ সালের ২২ফেব্রুয়ারি
১৫৩) প্রথম শহীদ মিনার নির্মান করা হয় – ১৯৫২ সালের ২২ ফেব্রুয়ারি ঢাকা মেডিকেল কলেজের সামনে
১৫৪) প্রথম শহীদ মিনার উদ্বোধন – ১৯৫২ সালের ২৩ ফেব্রুয়ারি
১৫৫) প্রথম শহীদ মিনার উদ্বোধন করেন – ভাষা শহীদ শফিউরের পিতা
১৫৬) একুশে ফ্রব্রুয়ারির উপর প্রথম কবিতা লেখেন – চট্টগ্রামের কবি মাহবুব উল আলম
১৫৭) ভাষা আন্দোলনের প্রথম কবিতার নাম – কাঁদতে
আসিনি ফাঁসির দাবি নিয়ে এসেছি
১৫৮) আলাউদ্দিন আল আজাদ রচনা করেন – স্মৃতির মিনার কবিতাটি
১৫৯) ভাষা আন্দোলনের গান – আমার ভাইয়ের রক্তে রাঙ্গানো একুশে ফেব্রুয়ারি ( আব্দুল গাফফার চৌধুরী)
১৬০) আব্দুল লতিফ রচনা করেন – ওরা আমার মুখের ভাষা কাইড়া নিতে চায়
১৬১) মুনীর চৌধুরী ঢাকা জেলে বসে রচনা করেন – কবর নাটক
১৬২) জহির রায়হান রচনা করেন – আরেক ফাল্গুন উপন্যাস
১৬৩) বাংলাকে পাকিস্তানের সংবিধানে অন্তর্ভুক্ত করে – ১৯৫৬ সালে
১৬৪) বাঙ্গালীর পরিবর্তী সব আন্দোলনের প্ররণা দিয়েছিল – ১৯৫২ সালের ভাষা আন্দোলন
১৬৫) শহীদ দিবস পালন শুরু হয় – ১৯৫৩ সালের ২১ ফেব্রুয়ারি থেকে
১৬৬) শহীদ দিবসকে আন্তর্জাতিক মাতৃভাষা দিবস ঘোষণা করে – UNESCO
১৬৭) ইউনেস্কো আন্তর্জাতিক মাতৃভাষা দিবস ঘোষণা করে – ১৯৯৯ সালের ১৭ নভেম্বর
১৬৮) পৃথিবীতে ভাষা রয়েছে – ৬০০০ এর বেশি
১৬৯) পূর্ব পাকিস্তান আওয়ামী মুসলিম লীগ গঠিত হয় – ১৯৪৯ সালের ২৩ জুন
১৭০) গঠনের স্থান – ঢাকার রোজ গার্ডেন
১৭১) সভাপতি ছিলেন – মওলানা আব্দুল হামিদ খান ভাসানী
১৭২) সাধারণ সম্পাদক ছিলেন – শামসুল হক ( টাঙ্গাইল)
১৭৩) যুগ্ন সম্পাদক ছিলেন – শেখ মুজিবুর রহমান
১৭৪) ১৯৫৪ সালের যুক্তফ্রন্ট গঠনের উদ্যোগ ছিল – আওয়ামী লীগের
১৭৫) পূর্ব পাকিস্তান আওয়ামী লীগ নামকরন করা হয় – ১৯৫৫ সালে
১৭৬) যুক্তফ্রন্ট গঠনের সিদ্ধান্ত হয় – ১৯৫৩ সালের ১৪ নভেম্বর
১৭৭) যুক্তফ্রন্ট গঠিত হয় – ৪ টি দল নিয়ে
১৭৮) যুক্তফ্রন্টের ইশতেহার ছিল – ২১ টা
১৭৯) প্রাদেশিক পরিষদের নির্বাচন অনুষ্ঠিত হয় – ১৯৫৪ সালের মার্চে
১৮০) পূর্ব বাংলার প্রাদেশিক পরিষদের আসনছিল – ২৩৭ টি
১৮১) যুক্তফ্রন্ট আসন লাভ করে – ২২৩ টি
১৮২) ২১ দফার প্রথম দফা ছিল – বাংলাকে পাকিস্তানের অন্যতম রাষ্ট্রভাষা করা
১৮৩) যুক্তফ্রন্টের মুখ্যমন্ত্রী হিসেবে শপথ গ্রহন করেন – এ.কে ফজলুল হক ( ১৯৫৪ সালের ৩ এপ্রিল)
১৮৪) যুক্তফ্রন্ট সরকার ক্ষমতায় ছিল – ৫৬ দিন
১৮৫) যুক্তফ্রন্ট সরকারকে বরখাস্ত করে – ১৯৫৪ সালের ৩০ মে
১৮৬) বরখাস্ত করেন – গভর্নর জেনারেল গোলাম মোহাম্মদ
১৮৭) বরখাস্তের ইস্যু ছিল – আদমজি ও কর্ণফুলি কাগজ কলে বাঙ্গালিঅবাঙ্গা লি দাঙ্গা।
১৮৮) বঙ্গবন্ধুর স্বাধীনতার ঘোষণা প্রচার করা হয় – ইপিআর ট্রান্সমিটার, টেলিগ্রাম ও টেলিপ্রিন্টারের মাধ্যমে
১৮৯) বঙ্গবন্ধু স্বাধীনতার ঘোষণা চট্টগ্রাম থেকে প্রচার করেন – ২৬ মার্চ দুপুর ও সন্ধ্যায় এম, এ, হান্নান
১৯০) মেজর জিয়াউর রহমান স্বাধীনতার ঘোষণা পত্র পাঠ করেন – ২৭ মার্চ সন্ধ্যায় চট্টগ্রামের কালুর ঘাট বেতার কেন্দ্র থেকে
১৯১) বাঙ্গালী পাকিস্তানের শাসনের অধীনে ছিল- ২৪ বছর
১৯২) মেহেরপুর জেলার অন্তর্গত – বৈদ্যনাথ তলাএবং আম্রকানন
১৯৩) বৈদ্যনাথ তলার বর্তমান নাম – মুজিবনগর
১৯৪) মুজিবনগর সরকার গঠিত হয় – ১৯৭১ সালের ১০ এপ্রিল
১৯৫) বাংলাদেশের স্বাধীনতার ঘোষণা আদেশ আনুষ্ঠানিকভাবে ঘোষিত হয় – ১৯৭১ সালের ১০ এপ্রিল
১৯৬) মুজিবনগর সরকার শপথ গ্রহন করে – ১৯৭১ সালের ১৭ এপ্রিল
১৯৭) মুজিব নগর সরকারের রাষ্ট্রপতি ও মুক্তিযুদ্ধের সর্বাধিনায়ক – বঙ্গবন্ধু শেখ মুজিবুর রহমান
১৯৮) উপরাষ্ট্রপতি – সৈয়দ নজরুল ইসলাম
১৯৯) প্রধান মন্ত্রী – তাজ উদ্দীন আহমেদ
২০০) অর্থমন্ত্রী – এম. মনসুর আহমদ
Share:

Saturday, August 18, 2018

আবার আসিব ফিরে - রূপসী বাংলা (১৯৫৭) -কাব্যগ্রন্থ (জীবনানন্দ দাশ)

আবার আসিব ফিরে ধানসিড়ির তীরে — এই বাংলায়
হয়তো মানুষ নয় — হয়তো বা শঙ্খচিল শালিখের বেশে;
হয়তো ভোরের কাক হয়ে এই কার্তিকের নবান্নের দেশে
কুয়াশার বুকে ভেসে একদিন আসিব এ কাঠাঁলছায়ায়;
হয়তো বা হাঁস হব — কিশোরীর — ঘুঙুর রহিবে লাল পায়,
সারা দিন কেটে যাবে কলমীর গন্ধ ভরা জলে ভেসে-ভেসে;
আবার আসিব আমি বাংলার নদী মাঠ ক্ষেত ভালোবেসে
জলাঙ্গীর ঢেউয়ে ভেজা বাংলার এ সবুজ করুণ ডাঙায়;



হয়তো দেখিবে চেয়ে সুদর্শন উড়িতেছে সন্ধ্যার বাতাসে;
হয়তো শুনিবে এক লক্ষ্মীপেচাঁ ডাকিতেছে শিমুলের ডালে;
হয়তো খইয়ের ধান ছড়াতেছে শিশু এক উঠানের ঘাসে;
রূপসা ঘোলা জলে হয়তো কিশোর এক শাদা ছেঁড়া পালে
ডিঙা রায় — রাঙা মেঘ সাঁতরায়ে অন্ধকারে আসিতেছে নীড়ে
দেখিবে ধবল বক: আমারেই পাবে তুমি ইহাদের ভিড়ে —

 
Share:

Sunday, May 6, 2018

new answer

What Can JavaScript Do?

JavaScript can change HTML content.
Share:

Total Pageviews